Spread the love

Featured Image: Wikipedia Commons.

Image: Perry-Castañeda Library Map Collection, The University of Texas at Austin.

সাল

৫০০-১২৪০ ঘানা সাম্রাজ্য শাসন করছে পশ্চিম আফ্রিকা।

১০৭৬ ঘানা সাম্রাজ্য সফর করলেন আরব পরিব্রাহক আল-বকরি। উত্তর আফ্রিকা থেকে আসা আলমোরাভিদরা ঘানা সাম্রাজ্য ধ্বংস করে দিল।

১৪৭১ ঘানা উপকূলে পর্তুগিজদের আগমন।

১৪৮২ পর্তুগিজরা ঘানায় সাও হোর্হে দা মিনা দুর্গের নির্মাণকাজ শুরু করল।

১৫১৫-২৬ পর্তুগিজরা সাও আন্তোনিও ও সাও সেবাস্তিয়ান দুর্গ নির্মাণ করল।

১৬৩৭ পর্তুগিজদের কাছ থেকে সাও হোর্হে দা মিনা দুর্গ ছিনিয়ে নিল ওলন্দাজরা।

১৬৬১ ঘানায় ক্রিশ্চান্সবর্গ দুর্গের নির্মাণকাজ শুরু করল দিনেমাররা।

১৬৬৫ ইংরেজরা সুইডদের কাছ থেকে কেপ উপকূল দুর্গ কেড়ে নিল। এটি রাজকীয় আফ্রিকান কোম্পানির সদরদপ্তরে পরিণত হল।

১৬৬৭ আকওয়ামুর আকান রাজ্য হামলা চালিয়ে ধ্বংস করে দিল বৃহৎ আক্রা।

১৬৭০য়ের দশক আশান্তে রাজ্যের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন আশান্তেহেনে ওসেই তুতু।

১৭২০-৫০ আকান ও অন্যান্য প্রতিবেশী রাজ্যআশা দখল করে নিলেন আশান্তেহেনে ওপোকু ওয়ারে।

১৭৩০-৮০ আশান্তেরা গোনজা ও দাগোমবা জয় করলেন।

১৭৫০ ঘানা উপকূলের উপনিবেশিক ব্যবসার ওপর একচেটিয়া অধিকার হারিয়ে ফেলল রাজকীয় আফ্রিকান কোম্পানি।

১৭৬৪-৭৭ আশান্তে রাজ্যে একটি শক্তিশালী আমলাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করলেন আশান্তেহেনে ওসেই কোয়াদো। রাজকার্যে নিয়োগ পেতে বংশপরিচয়ের চেয়ে প্রশাসনিক যোগ্যতাই প্রধান বিবেচ্য হয়ে উঠল।

১৮০৭-১৪ ঘানা উপকূলে অসংখ্যবার আক্রমণ চালাল আশান্তেরা।

১৮০৭ মে ১: ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে দাস বাণিজ্য বেআইনি ঘোষিত হল।

১৯৫৭ ব্রিটিশদের কাছ থেকে স্বাধীনতা অর্জন করল ঘানা, সদ্যস্বাধীন দেশটির প্রধানমন্ত্রী হলেন কোয়ামে নক্রুমাহ।

১৯৬০ ঘানাকে একটি প্রজাতন্ত্র বলে ঘোষণা করা হল।

১৯৬৪ ঘানা একটি একদলীয় রাষ্ট্রে পরিণত হল।

১৯৬৬ এক সামরিক ক্যুদেতায় উৎখাত হলেন নক্রুমাহ।*

* ঘানা থেকে রুশ ও চীনা টেকনিশিয়ানদের তাড়িয়ে দেয়া হল।

১৯৬৯ নয়া সংবিধান, কফি বুসিয়ার নেতৃত্বাধীন বেসামরিক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হল।

১৯৭২ কর্নেল ইগনাতিয়াস আচিয়ামপংয়ের নেতৃত্বাধীন একটি সামরিক ক্যুদেতায় উৎখাত হলেন বুসিয়া।

১৯৭৮ কর্নেল আচিয়ামপংকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হল, ক্ষমতা গ্রহণ করলেন জেনারেল ফ্রেডরিক আকুফো।

১৯৭৯ এক ক্যুদেতায় আকুফোকে উৎখাত করা হল এবং তাঁর ও সাবেক নেতা আচিয়ামপংয়ের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হল। ক্ষমতা গ্রহণ করলেন ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট জেরি রলিংস। সেপ্টেম্বর নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিল্লা লিম্যানের হাতে ক্ষমতা অর্পণ করলেন রলিংস।

১৯৮১ এক সামরিক ক্যুদেতায় লিম্যানকে উৎখাত করলেন রলিংস।

১৯৮৩ মুক্তবাজার অর্থনৈতিক নীতি গ্রহণ করলেন রলিংস।*

* ভর্তুকি ও দাম নিয়ন্ত্রণের বিলোপসাধন করা হল। বহু রাষ্ট্রীয় উদ্যোগ ব্যক্তিমালিকানায় দেয়া হল। মুদ্রার অবমূল্যায়ন ঘটানো হল।

১৯৯২ গণভোটে একটি নয়া সংবিধানকে অনুমোদন দেয়া হল, যা একটা বহুদলীয় ব্যবস্থা প্রবর্তন করল।

১৯৯৪ ভূমি মালিকানা নিয়ে কনকোমবা ও নানুমবাদের জাতিগত দ্বন্দ্বের জের ধরে দেখা দেয়া সহিংসতায় ঘানার উত্তরাঞ্চলে ১,০০০য়েরও বেশি মানুষের মৃত্যু, উচ্ছেদ হলেন ১ লক্ষ ৫০ হাজারেরও কিছু বেশি।

২০০০ ডিসেম্বর: ঘানার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন জন কুফুর।

২০০৭ জুন: ঘানার অফশোরে বিপুল পরিমাণ তেল আবিষ্কৃত হল।*

* প্রেসিডেন্ট কুফুর বললেন তেল ঘানাকে একটা আফ্রিকান বাঘয়ে পরিণত করবে।

২০০৮ ডিসেম্বর: ঘানার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন জন আতা মিলস।

২০১০ ডিসেম্বর: ঘানার অফশোরে তেল উৎপাদন শুরু হল।

২০১২ জুলাই: মিলসের মৃত্যু, তাঁর স্থলাভিষিক্ত হলেন জন মাহামা।

২০১৩ ঘানা সরকার জানাল, তারা ৪,৭০০ চীনা খনি শ্রমিককে অবৈধ হওয়ার কারণে চীনে ফেরত পাঠিয়েছে।

২০১৭ জানুয়ারি: ঘানার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন নানা আকুফো-আড্ডো।

২০২০ ডিসেম্বর: ঘানার প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হলেন নানা আকুফো-আড্ডো।

তথ্যসূত্র

BBC. 2018. “Ghana Profile – Timeline.” BBC, May 1, 2018.
https://www.bbc.com/news/world-africa-13434226.

Cartwright, Mark. “Ghana Empire.” World History Encyclopedia. Last modified March 05, 2019. https://www.worldhistory.org/Ghana_Empire/.

Gocking, Roger S. 2005. The History of Ghana. Westport, Connecticut: Greenwood Press.

নোট: ইরফানুর রহমান রাফিনের নন-ফিকশন সময়রেখা ঢাকার দিব্যপ্রকাশ কর্তৃক ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত হয়। এই ব্লগটি সেই বই সংশ্লিষ্ট গবেষণা প্রকল্প। ঢাকা, চট্টগ্রাম, ও সিলেটের বিভিন্ন বইয়ের দোকানে পাওয়া যাবে সময়রেখা, এবং অনলাইনে অর্ডার দিয়েও সংগ্রহ করা যাবে।

অনলাইন অর্ডার লিংকসমূহ

দিব্যপ্রকাশ । বাতিঘর । বইবাজার । বইয়ের দুনিয়া । বইফেরী । বুক হাউজ । ওয়াফিলাইফ । রকমারি

By irrafinofficial

ইরফানুর রহমান রাফিনের জন্ম ঢাকায়, ১৯৯২ সালে। বর্তমানে একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমে লিখে অন্নসংস্থান করেন। নিজেকে স্মৃতি সংরক্ষণকারীদের পরম্পরার একজন হিসাবে দেখেন। যোগাযোগ: irrafin2022@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Creative Commons License
Except where otherwise noted, the content on this site is licensed under a Creative Commons Attribution-ShareAlike 4.0 International License.